ঘাটাইলে তিন স্কুল ছাত্রী ধর্ষন মামলার তিন আসামীকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন।

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৮, ২০২০

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
টাঙ্গাইলে ঘাটাইলে বনের ভিতরে বেড়াতে যাওয়ায় এক বান্দবী ও দুই বন্ধুকে গাছের সাথে বেধে নবম শ্রেনীর তিন বান্ধবীকে পালা ক্রমে ধর্ষন মামলায় তিনজনকে আদালতে সোপর্দ করা করেছে পুলিশ। এরা হচ্ছে সন্ধানপুর ইউনিয়নের সাতকুড়া এলাকা থেকে ইফসুফ,বাবু এবং ঘাটাইল পৌর এলাকার উল্টর পাড়া গ্রামের সুমন।
ঘাটইল থানার তদন্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, গত রোববার দুপুরে ঘাটাইলের একটি স্কুলের মিলাদেও অনুষ্ঠান শেষে নবম শ্রেনীর চার বান্দবী ও তাদের দুই বন্ধু মিলে ঝড়কা বন এলাকায় বেড়াতে যায়। এসময় স্থানীয় ১০/১২জন বখাটে তাদের পিছু নেয়। পরে গভির জঙ্গলের ভিতরে গেলে বখাটে যুবকরা তাদের উপরে আক্রমন করে এক বান্দবী ও দুই বয় ফ্রেন্ডকে গাছের সাথে বেধে বাকী তিন বান্দবীকে জোর পূর্বক পালাক্রমে ধর্ষন করে ধর্ষকরা সন্ধার পরে তাদের রেখে পালিয়ে যায়। পরে এক ধর্ষিতার নানীর বাড়ি বন এলাকার কাছে থাকায় সবাই মিলে সেখানে আশ্রয় নেয় তারা। পরে নানীর বাড়ির লোকজন ধর্ষিতা কিশোরীদের বাড়িতে সংবাদ দিলে পরিবারের লোকজন ঘাটাইল থানায় বিষয়টি অবহিত করে। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্যার করে থানা হেফাজতে নিয়ে আসে। এব্যাপারে এক ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে (মোঃ আবুল কাশেম) অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামী করে ঘাটাইল থানা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে। ধীর্ষতা কিশোরীদের ডাক্তারী পরিক্ষা সম্পূন্য হয়েছে। গতকাল বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে সন্ধানপুর ইউনিয়নের সাতকুড়া এলাকা থেকে ইফসুফ ও বাবু এবং সুমনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের আজ আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। মামলার সার্থে অনেক কিছুই বলা সম্ভব হচ্ছেনা তবে আদালতে আসামীরা ১৬৪ ধারায় জবান বন্ধি না দিলে রিমান্ড আবেদন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।
এদিকে সরকার পক্ষের আইনজিবী এস আকবর খান জানান, তিন কিশোরী ধর্ষন মামলার আসামীদেও আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। আইনী প্রকৃয়া অনুযায়ী সকল প্রকার ব্যাবস্থা নেয়া হবে।