দেলদুয়ারে ৩ কোটি ব্যায়ে নির্মানাধীন সড়ক সাত দিনেই শেষ!

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২০

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার দেলদুয়ার থেকে করটিয়া পর্যন্ত সারে তিন কি.মিটার রাস্তা নির্মান কাজে অনিয়মের অভিযোগ। নিম্ন মানের নির্মান সামগ্রী ব্যাবহার করায় নির্মানের ৭ দিনেই সিলকোট উঠে যাচ্ছে। অন্যদিকে সারে তিন কোটি ব্যায়ে নির্মানাধীন রাস্তার বিভিন্ন অংশে ২৭ লাখ টাকা ব্যায়ে ১৭টি প্যালাসাইটিং করার কথা থাকলেও একটি প্যালাসাইটিংও করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ফলে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার কাজের গুনগত মান খারাপ হয়েছে স্বিকার করলেও ঠিকাদার মানতে নারাজ রয়েছে।

এলাকাবাসী জানা, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার দেলদুয়ার সদর থেকে করটিয়া পর্যন্ত রাস্তাটি দীর্ঘ দিন যাবৎ সংস্কার না করায় মানুষের দূভোর্গের কোন শেষ ছিলোনা। বিভিন্ন সময়ে এই রাস্তাটি স্থানীয় জন প্রতিনিধিরা করার কথা থাকলেও রাস্তাটি নির্মান করেনি। ফলে দিনের পর দিন দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছে কয়েকটি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষকে। অবশেষে সাধারন মানুষের কাংক্ষিত এই রাস্তাটি এলজিইডি কর্তৃক গত বছরের শুরুর দিকে প্রায় তিন কোটি টাকা নির্মান ব্যায় ধরে টেন্ডার হয়। আর টেন্ডার প্রকৃয়া অনুযায়ী কাজ পায় তাপস ট্রেডার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কর্তৃপক্ষের কার্যাদেশ অনুযায়ী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গত বছরের শুরুর দিকে কাজটি শুরু করলেও কাজের গুনগতমান নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে অসোন্তষ দেখা দিয়েছে। চলমান কাজের যে অংশে সিলকোট করেছে সেখানে গাড়ির চাকায় সিলকোট উঠে যাচ্ছে। অন্যদিকে রাস্তার পাশে পুকুর বা নিচু জায়গায় ২৭ লাখ টাকা ব্যায়ে বিভিন্ন স্থানে ১৭টি প্যালাসাইটিং করার কথা থাকলেও একটিও করা হয়নি। ফলে তিন কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মানাধিন কাংক্ষিত রাস্তাটি এই এলাকার স্থানীয়দের প্রানের দাবী পূরন হলেও এর সুফল পাওয়া নিয়ে আংশকা করছেন স্থানীয়রা। দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেয়ারও দাবী এলাকাবাসীর।
দেলদুয়ার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মারুফ বলেন, রাস্তায় নিম্ন মানের নির্মান সামগ্রী ব্যাবহার করছে অভিযোগ পেয়েছি। এব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি এবং ভাল কাজের সার্থে সকল প্রকার পদক্ষেপ নেয়া হবে।
এদিকে তাপস ট্রেডার্স এর মালিক শরিফ আহামেদ অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, কিছু সার্থন্নেষী মহল তাদের সুবিধা দেয়া হয়নি বলে সাবল দিয়ে রাস্তার কার্পেটিং তুলেছে। যথাযথ নিয়োমেই কাজ হয়েছে বলে দাবী করেছেন তিনি।
উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, কাজের গুনগত মান খারাপ হয়েছে স্বিকার করেছেন এবং উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিয়েছেন।
দেলদুয়ার করটিয়া রাস্তাটি উপজেলার ৫টি ইউনিরয়নের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের করে। দেলদুয়ার উপজেলা থেকে টাঙ্গাইল সদর এবং বাসাইলের এক মাত্র রাস্তা।